নাটোরে ম্যাজিস্ট্রেট পরিচয়ে প্রতারণা, আটক ৫

নাটোর সাংবাদদাতা:
পোশাকে অফিসারের ছাপ। নোহা মাইক্রো থামতেই নেমে এলেন ৫ জন। সরাসরি চলে গেলেন নাটোর শহরের পৌরসভা মোড়ের পাশেই মেমোরী ডায়াগনস্টিক সেন্টারে। আগত ৫ জনের একজন সিরাজুল ইসলাম নিজকে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ও অন্যদের তার সহযোগী পরিচয় দিলেন। এরপর প্রতিষ্ঠানটির নানা অনিয়ম-অব্যাবস্থাপনার অভিযোগ করে অর্থ দাবী করলেন।

তাদের কথাবার্তা সন্দেহ হলে প্রথমে বিষয়টি এসোসিয়েশন নেতৃবৃন্দকে এবং পরে ৯৯৯ নম্বরে ফোন করে পুলিশে খবর দেন ডায়াগনোষ্টিক সেন্টারের মালিক হাবিবুর রহমান। পরে পুলিশ এসে তাদের আটক করে।

আটককৃত আরিফুর রহমান ঝালকাঠির নলছিটি থানার রায়পুরা গ্রামের আফসার আলীর ছেলে, মনিরুজ্জামান মুন্সিগঞ্জ সদরের গনকপাড়ার হুরমুজ আলীর ছেলে, মাহবুব আলম খান ঢাকার পূর্ব রামপুরার আব্দুল হাই খানের ছেলে, সিরাজুল ইসলাম খুলনা জেলার কোতয়ালী এলাকার আজিুজল ইসলামের ছেলে ও আতিকুর রহমান একই জেলার খানজাহান এলাকার হাসিম উদ্দিনের ছেলে।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(তদন্ত) আব্দুল মতিন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। আব্দুল মতিন জানান, শনিবার দুপুরে প্রতারকরা ওই ডায়াগনস্টিকে গেলে স্বত্বাধিকারী তৌকির রমানের সন্দেহ হয়। পুলিশ বর পেয়ে তাদের আটক করে।

আটকরা নিজদের আন্তর্জাতিক মানবাধিকার ও গোয়েন্দা সংবাদ সংস্থার সদস্য পরিচয়ে অর্থ আদায় করতো। এঘটনায় নিয়মিত মামলা প্রক্রিয়াধীন।

 

শর্টলিংকঃ