আ'লীগের ত্রিবার্ষিক কাউন্সিল ঘিরে উত্তেজনা!

গুরুদাসপুর উপজেলা সভাপতিকে প্রাণনাশের হুমকি!


নাটোর প্রতিনিধি :
দীর্ঘ উত্তেজনা, প্রতিযোগীতা ও বিরোধপূর্ণ আ’লীগ এলাকাখ্যাত নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলা আ’লীগের ত্রিবার্ষিক কাউন্সিল ঘিরে চলছে উত্তেজনা! এরই অংশ হিসাবে সম্প্রতি উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে
জেলা আ’লীগ সভাপতি, তার সন্তান কেন্দ্রীয় যুবমহিলালীগের সহসভাপতি ও অপর সন্তানকে প্রাণনাশের হুমকির অভিযোগ করেছেন সংশ্লিষ্টরা। এনিয়ে উপজেলা ও জেলা আ’লীগে চলছে চরম উত্তেজনা। এব্যাপারে কেন্দ্রীয় আ’লীগের আশু পদক্ষেপ চেয়েছেন স্থানীয় ও জেলা আ’লীগ।
নাটোর জেলা আ’লীগ সভাপতি আব্দুল কুদ্দুস এমপির কন্যা ও বাংলাদেশ যুবমহিলালীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সহসভাপতি এডভোকেট কোহেলী কুদ্দুস মুক্তি অভিযোগ করেন,গত ২১ জুন উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌরমেয়র শাহনেওয়াজ আলী মোল্লা উপজেলার মশিন্দা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে এক সভায় বক্তব্য,রাখেন। ওই বক্তব্যের এক পর্যায়ে তার,বাবা আব্দুল কুদ্দুস,ভাই আসিফ আব্দুল্লাহ বিন কুদ্দুস শোভন ও তাকে প্রকাশ্যে প্রাণ নাশের হুমকি দেয় শাহনেওয়াজ আলী মোল্লা। পরে ওই বক্তব্যের ভিডিও নিজ আইডি থেকে শেয়ার করেন তিনি। বিষয়টি নজরে এলে তারা জেলা আ”লীগসহ কেন্দ্রীয় আ’লীগের সাংগঠনিক সমৃপাদক এসএম কামালকেও অবহিত করে ব্যাবস্থার দাবী করেছেন। এবিষয়ে আইসিটি আইনে মামলা করারও চিন্তা করছেন তারা দাবী করে জানান,প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রতিযোগীতার রাজনীতি পছন্দ,করেন তবে প্রতিহিংসা নয়।
বিষয়টি সম্পর্কে জানতে চাইলে জেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক শরিফুল ইসলাম রমজান জানান,ওই হুমকির ভিডিওর বিষয়টি তারা অবগত। এব্যাপারে দলীয়ভাবে পদক্ষেপের জন্য তারা নিজেরা আলোচনার পাশাপাশি কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দকেও জানিয়েছেন।
হুমকির বিষয় সম্পর্কে জানতে চাইলে অভিযুক্ত শাহনেওয়াজ আলী মোল্লা জানান,২০২০ সালে ত্রিবার্ষিক কাউন্সিলের মাধ্যমে উপজেলা আ’লীগের কমিটি কাজ শুরু করে। ওই কমিটির তিনি সাধারণ সম্পাদক। গঠণতন্ত্রমতে ওই কমিটির অংশগ্রহণে ভোটাভুটির মাধ্যমে ২০২২ সালের কাউন্সিল হওয়ার কথা। কিন্তু সম্প্রতি জেলা আ’লীগ তাদের একটি চিঠি দিয়ে জানায়,উপজেলায় দুইটি কমিটি আছে। উভয় কমিটির সমন্বয়ে বর্ধিত সভা করার কথা ওই পত্রে উল্লেখ করা হলে উত্তেজিত পরিস্থিতি সৃষ্টি হয় যার ধারাবাহিকতায় এলাকার নেতাকর্মীদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয় যার বহিঃপ্রকাশ হিসাবে এমপি আব্দুল কুদ্দুস ও তার পরিবারের ওপর ক্ষিপ্ত হয় স্থানীয় আ’লীগ। জেলা আ’লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট মালেক শেখ জানান,গুরুদাসপুর আ’লীগের চলমান উত্তেজনা নিজ দলের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করছে যা স্থানীয়ভাবে সমাধান প্রায় অসম্ভব। এমন অবস্থায় প্রধানমন্ত্রীর পরামর্শ নিয়ে সাংগঠনিক সম্পাদক এসএম কামাল,আ’লীগের প্রেসিডিয়াম সাদস্য এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনসহ বিভাগীয় ও কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের মাধ্যমে বিষটির আশু,সুরাহা কামনা করেন তিনি।

শর্টলিংকঃ